মৃন্ময় ৬৯

তোমাকে আজ কোথাও খুঁজে পাইনা!
শহুরে রোদে, উদাসী বিকেলে
ঝুপ করে ঢলে পড়া সন্ধ্যার বুকে
কোলাহল মিছিলে,শ্বাশত চির ভাস্কর সুখ স্মৃতিতে
যেদিকে তাকাই কেবল মরুউত্তাপ
উত্তাপে জ্বলে যায় ঈশ্বরের সংবিধান;
শুধু তোমাকে খুঁজে পাইনা কোথাও।
 
আঁধারের সাথে হুরুহুরি করে ব্যবধান বাড়ে রাতের
বয়স বাড়ছে বৃক্ষটি ভুলে যায়
নানান ছুতোয় সেও কাঁদে বিরামহীন নিঃসঙ্গতায়
ভ্রান্তিকে ঘিরে মেঘ জটলা বাঁধে মধ্যাকাশে
এদিক ওদিক কষ্ট পালক উড়ে যায় সীমাহীন
বাতাসের কানে বাতাস চুপিচুপি বলে যায়;
মৃন্ময়কে আজ খুঁজে পাইনা কোথাও।
সবুজ ছেড়ে উড়ে যায় ঘাসফড়িং আচমকা
বিবস্ত্র আকাশে নিরাশ্রয় চোখ খুঁজে মরে মায়ার বাসর
উৎকন্ঠা তরতর করে বেয়ে উঠে গ্রীবায়; অতঃপর
খালি পায়ে স্মৃতিগুলো হেঁটে যায় ধূসর সময়ের মুখে!
তোমাকে খুঁজে খুঁজে দিকভ্রান্ত মনে
স্পর্শকাতর ভালোবাসা আবারো চিৎকার করে কেঁদে উঠে।
মৃন্ময়, মধ্যরাতে কান পেতে শুনি বুকের ভিতর জলপতনের শব্দ
হুট করে অভিশাপ লাগে মনে
শেষ রাতের অযৌক্তিক কাব্যের পুনরালোচনায়
বেহুদা তোমায় খুঁজে চলেছি!
অনুতাপে সবুজ মিশে যায় হলুদের বুকে
রোদের তাপমাত্রা বেড়ে যায়; শূন্যতার কোলে মমতা ঘুমিয়ে পড়ে
মৃন্ময় আমার, এমন যাতনাময় ভালোবাসা কেন দিয়েছিল?